1. m_prodhan@yahoo.com : Mahabub Alam Prodhan : Mahabub Alam Prodhan
  2. bpcitaly@gmail.com : Md abdul Wadud : Md abdul Wadud
  3. rasel1391992@gmail.com : Rasel Ahmed : Rasel Ahmed
  4. currentshomoynews@gmail.com : shomoynews1 :
মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৮:১০ পূর্বাহ্ন

ক্যাসিনো সাম্রাজ্য ক্লাবপাড়া এখন মাদকসেবীদের দখলে

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৩ জুন, ২০২০
  • ৪০ বার পঠিত

গত বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানে বদলে যাওয়া ক্লাবপাড়ার পুরো দৃশ্যপট এখনো স্বাভাবিক হয়নি। সামনে সাইনবোর্ড থাকলেও প্রতিটি ক্লাবের এখনো দরজা সিলগালা করা। ঝুলছে পুলিশের লাগানো তালা। দিন-রাত কোলাহল লেগে থাকা ক্লাবঘর আর চত্বর এখনও নীরব-নিস্তব্ধ। নেই খেলোয়াড়দেরও তেমন উপস্থিতি। ঐতিহ্যবাহী মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব লিমিটেড, ফকিরেরপুল ইয়ংমেনস ক্লাব, ভিক্টোরিয়া ক্লাব, আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ, আজাদ স্পোর্টিং ক্লাব, সোনালী অতীত ক্রীড়াচক্র, দিলকুশা স্পোর্টিং ক্লাব, ঢাকা ওয়ান্ডারার্স ক্লাব, মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়াচক্র, ধানমন্ডি ক্লাব, কলাবাগান ক্রীড়াচক্র এখন নীরবতায় ডুবে আছে। একমাত্র ওয়ারী ক্লাব ছাড়া আর সব ক্লাবের ফটকে পুলিশের লাগানো তালা ঝুলছে।

গত শুক্রবার সকালে পুলিশ মতিঝিলের আরামবাগ ক্লাবের ছাদ থেকে সাইফুল ইসলাম নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করে। এলাকাবাসী জানায়, মৃত সাইফুল ক্লাবপাড়ায় ইয়াবাসেবী ছিলেন। লাশ উদ্ধারের আগের দিন দুপুর থেকে সাইফুলসহ আরো ৪/৫ জন ছাদের ওপর বসে ইয়াবা সেবন করেছেন। আশেপাশের বাড়ির জানালা দিয়ে বাসিন্দারা এ দৃশ্য সব সময়ই দেখেন।

আরামবাগ ক্লাবের আশপাশের এক বাসিন্দা বলেন, ক্লাবের ভেতরে যখন মাদক সেবন হয় তখন পুলিশের কোন খোঁজ থাকে না। পুলিশের সোর্স জুলহাস এখন ক্লাব পাড়ার ইয়াবাসহ অন্যান্য মাদকের বড় ডিলার। তার সহযোগি সেন্টু, রনি, জাফরসহ আরো অন্তত ২০ জন থেকে ৩০ জন মিলে ইয়াবা কারবারে সম্পৃক্ত। এখন খুচরা ইয়াবা,গাঁজা ও ফেন্সিডিলসহ বিভিন্ন ধরনের মাদক এলাকায় বিক্রি করে তারা।

মতিঝিলের ক্লাবপাড়ার আজহার উদ্দিন নামের এক বাসিন্দা বলেন, করোনার কারণে সন্ধ্যার পর ক্লাব পাড়া অনেকটা জন মানব শূন্য হয়ে পড়ে। সন্ধ্যার পর এলাকায় ভুতুরে পরিবেশ সৃষ্টি হয়। সকল দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়। এই সুযোগে মাদক সেবীরা ক্লাবগুলোর দেয়াল প্রাচীর টপকে ভেতরে আড্ডা দেয়। ইয়াবা সেবন করে। শুধু এলাকাবাসী নয়, ক্লাবগুলোর দায়িত্বপ্রাপ্তদের সঙ্গে কথা বলেও একই ধরনের তথ্য পাওয়া গেছে। তারা বলছেন, ক্যাসিনো অভিযানের পর ক্লাবগুলোতে এখনো পুলিশের তালা ঝুলছে। এর মধ্যে দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমনের কারনে পরিস্থিতি আরো খারাপ হয়ে উঠেছে। এই সুযোগে ক্লাবগুলোতে চুরিও হচ্ছে। তিন মাস আগে মতিঝিলের আরামবাগ ক্লাবে পুলিশের তালা মারা দরজা ভেঙ্গে চোর শীতাতপ নিয়ন্ত্রনের তিনটি যন্ত্রসহ বেশ কিছু মালামাল চুরি করে। ক্লাবগুলোতে এখন মাদক সেবনের জমজমাট আসর বসে।

জানতে চাইলে আরামবাগ ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব আলী বলেন, ক্যাসিনো অভিযানের পর ক্লাবগুলোতে তালা মেরে চাবি পুলিশ নিয়ে গেছে। সামনে খেলাধুলার দলবদল হবে। এ অবস্থায় সামনে ক্রীড়াঙ্গনের কি পরিস্থিতি হবে-সেটা নিয়ে নীতি নির্ধারকদের আগেই চিন্তা করতে হবে। যতদিন পুলিশ ক্লাবের তালা খুলে কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে না দেবে ততদিন এর নিরাপত্তার দায় দায়িত্ব পুলিশের।

মতিঝিল থানার অফিসার ইনচার্জ ইয়াসির আরাফাত খান বলেন, আদালতের নির্দেশে ক্লাবগুলোতে তালা মেরে সিলগালা করে দেওয়া হয়েছে। ক্লাবের নিরাপত্তার জন্য পুলিশ টহল ডিউটি দেয়। তবে ক্লাবগুলোর আশেপাশে মাদকসেবীদের আড্ডা দেওয়ার বিষয়ে কোনো অভিযোগ মিলেনি। ক্লাবগুলোর কর্মকর্তারা তথ্য দিয়ে পুলিশের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..

পুরনো সংবাদ পড়ুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১