1. m_prodhan@yahoo.com : Mahabub Alam Prodhan : Mahabub Alam Prodhan
  2. bpcitaly@gmail.com : Md abdul Wadud : Md abdul Wadud
  3. rasel1391992@gmail.com : Rasel Ahmed : Rasel Ahmed
  4. currentshomoynews@gmail.com : shomoynews1 :
সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ১১:৫৭ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশ দূতাবাস, প্যারিসে গণহত্যা দিবস পালিত

নিউজ ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ২৬ মার্চ, ২০২১
  • ৮৭ বার পঠিত

২৫ মার্চ প্যারিসস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসে যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে ‘গণহত্যা দিবস’ পালিত হয়েছে।

একাত্তরের গণহত্যায় নিহত শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধাস্বরূপ প্রতীকীভাবে ৭১ টি মোমবাতি প্রজ্জ্বলনের মধ্য দিয়ে দূতাবাসের অনুষ্ঠান শুরু হয়। এরপর পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত এবং অন্যান্য পবিত্র ধর্মগ্রন্থ থেকে পাঠ শেষে মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের রূহের মাগফেরাত ও দেশের শান্তি ও সমৃদ্ধির জন্য বিশেষ মোনাজাত করা হয়। এবং তাঁদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা  পালন করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে মহামান্য রাষ্ট্রপতি, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত বাণী পাঠ করা হয়।

চলমান কোভিড-১৯ অতিমারীর প্রেক্ষিতে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে দূতাবাসের সকল সদস্য এ আয়োজনে অংশগ্রহণ করেন। প্রবাসীদের অংশগ্রহণের লক্ষ্যে দূতাবাস অনুষ্ঠানটি ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে আয়োজন করে। ফলে ফ্রান্সে বসবাসরত বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, রাজনৈতিক, ব্যবসায়ী, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ প্রবাসের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও গুণীজন অনলাইনে অংশগ্রহণ করেন।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালো রাতের ওপর ভিত্তি করে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ইলেক্ট্রনিক গণমাধ্যমে প্রচারিত ভিডিও ফুটেজকে সংকলিত করে দূতাবাসের সম্পাদনায় একটি প্রামাণ্যচিত্র  “Bangladesh Genocide 1971” প্রদর্শিত হয় ।

এরপর দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে অনলাইন এ আয়োজনে সংযুক্ত বক্তারা রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধে আমাদের জনগণের উপর পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর নৃশংস হত্যাকাণ্ড ও নিপীড়নের তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করেন।  ফ্রান্সে নিযুক্ত বাংলাদেশের মান্যবর রাষ্ট্রদূত কাজী ইমতিয়াজ হোসেন তাঁর বক্তব্যের শুরুতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর স্মৃতির শ্রদ্ধা জানান এবং শহীদদের স্মৃতিতে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। গণহত্যা দিবসের স্বীকৃতি আদায়ে আরও সচেতনতা বৃদ্ধি করার জন্য তাঁর বক্তব্যে তিনি উল্লেখ করেছেন যে, বিশ শতকের সবচেয়ে ভয়াবহ গণহত্যাগুলির মধ্যে একটি বাংলাদেশে সংগঠিত হয়। কিন্তু এ হত্যাকাণ্ডের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি না পাওয়া দুর্ভাগ্যজনক। বর্তমান সরকার ২৫শে মার্চকে ‘গণহত্যা দিবস’ ঘোষণা করেছে, কারণ ১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তানি হানাদারবাহিনী “অপারেশন সার্চলাইট” শুরু করে নিরস্ত্র ও নিরীহ বাংলাদেশিদের নির্বিচারে হত্যা করেছিল। দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী এ স্বাধীকার আন্দোলনে পাকিস্তানি বাহিনীর হত্যাকাণ্ডের বিরুদ্ধে গণসচেতনতা জাগরণের লক্ষ্যেও এ গণহত্যা দিবস পালন করা হচ্ছে। রাষ্ট্রদূত আরো জানান যে, সরকার বিশ্বব্যাপী সচেতনতা বাড়াতে এবং বাংলাদেশের গণহত্যার স্বীকৃতি অর্জনের জন্য কাজ  করে যাচ্ছে। তিনি গণহত্যা সম্পর্কে জনগণের সচেতনতা বাড়াতে এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের স্বীকৃতি আদায় নিশ্চিত করার জন্য সরকারের প্রচেষ্টাকে শক্তিশালী করার জন্য সকলকে তাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে কাজ করার আহ্বান জানান। এছাড়া তিনি গণহত্যার তথ্যাদি সংরক্ষণ এবং এ বিষয়ে অধিকতর গবেষণা জোরদার করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

সবশেষে গণহত্যায় নিহত শহীদদের স্মরণে এক মিনিট ‘ব্ল্যাক আউট’ পালন করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..

পুরনো সংবাদ পড়ুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০